ঢাকা, সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ২৯ চৈত্র ১৪২৭ আপডেট : ৫৮ মিনিট আগে

প্রকাশ : ০৪ মার্চ ২০২১, ১২:১১

প্রিন্ট

নেতা-কর্মীদের শক্ত হয়ে দাঁড়ানোর আহ্বান

নেতা-কর্মীদের শক্ত হয়ে দাঁড়ানোর আহ্বান
ছবি: প্রতিবেদক

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির নেতা-কর্মীদের শক্ত হয়ে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী যুবদল আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এ আহ্বান জানান।

‘লেখক মুসতাক আহমেদ ও সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে’ এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্য মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমাদেরকে দাঁড়াতে হবে। শক্ত হয়ে দাঁড়াতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হয়ে দাঁড়াতে হবে। আজকে আসুন, আমরা সব রাজনৈতিক দল এক সাথে প্রতিবাদী হয়ে দাঁড়াই।’

এসময় তিনি বলেন, ‘আমি স্লোগান দিচ্ছি। আপনারা স্লোগান দেবেন। মুসতাক আহমেদের হত্যার, জবাবে নেতা কর্মীরা বলেন, বিচার চাই বিচার। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, কর্মীরা বলেন, বাতিল করো বাতিল করো। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার, নেতা কর্মীরা বলেন, মুক্তি চাই মুক্তি চাই।’

বর্তমান সরকার সম্পূর্ণ একটি অনির্বাচিত ও অবৈধ সরকার মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, ‘তাদেরকে জোর করেই ক্ষমতায় টিকে থাকতে হচ্ছে। টিকা থাকার জন্য তাদেরকে এ ধরণের গণবিরোধী আইন করতে হয়েছে। এই আইনের মাধ্যমে জনগণের কথা বলার অধিকার ও বাকস্বাধীনতা কেড়ে নিচ্ছে।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে যত জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের সকলের মুক্তির দাবি করেন ফখরুল।

তিনি বলেন, ‘এই সরকারকে সরাতে হবে। কারণ এই সরকার জনগণের নির্বাচিত সরকার নয়। এই সরকারের কোন বৈধতা নেই। আমরা বিশ্বাস করি, জনগণের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনেই এই সরকারের পতন হবে।’

অবিলম্বে পদত্যাগ করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় নির্বাচন দিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন ফখরুল।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘লেখক মুসতাক আহমেদকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার করে অন্যায়ভাবে কারাগারে আটক রেখে তাকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা প্রথমেই বলেছিলাম, এই হত্যাকাণ্ড রাষ্ট্রীয়ভাবে হয়েছে। আমরা সেদিনই বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি করেছি। শুধু একটি নয়। এই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে প্রায় ৭’শত মানুষকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন, শুধু মাত্র সরকারের সমালোচনা করার জন্য ৭ বছরের মেয়ে ও গৃহবধূকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী হচ্ছেন আমাদের সাংবাদিক ভাইয়েরা।’

সমাবেশকে কেন্দ্র করে সকাল ১০টা থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে যুবদলের নেতা কর্মীদেরকে সমবেত হতে দেখা গেছে। কয়েক শতাধিক নেতা-কর্মী এই সমাবেশে অংশ নেন।

যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরবের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ বক্তব্যে রাখেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/কেএস/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত