ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ৮ মাঘ ১৪২৭ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১০:২১

প্রিন্ট

ভাস্কর্য তৈরি হলে টেনে হিঁচড়ে ফেলে দেব

ভাস্কর্য তৈরি হলে টেনে হিঁচড়ে ফেলে দেব
ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

হেফাজতে ইসলামের আমীর জুনায়েদ বাবুনগরী হুমকি দিয়েছেন, কোনো ভাস্কর্য তৈরি হলে তা টেনে হিঁচড়ে ফেলে দেয়া হবে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের হাটহাজারী পার্বতী উচ্চবিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ হুমকি দেন।

বাবুনগরী বলেন, ‘আমি কোনো রাজনৈতিক দলের নাম নেব না। যারা ভাস্কর্য তৈরি করবে, টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেয়া হবে। আমার বাবার নামেও যদি কেউ ভাস্কর্য তৈরি করে, টেনে হিঁচড়ে ফেলে দেব।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মদিনার সনদে দেশ চলবে। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। মদিনার সনদে যদি দেশ চলে, ইসলামবিরোধী কোনো কাজ হতে পারবে না। মদিনায় কি কোনো ভাস্কর্য আছে? ইনশাল্লাহ প্রধানমন্ত্রী (ভাস্কর্য বসাতে) দেবে না, দেবে না।’

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বাবুনগরী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে অন্তর থেকে ভালোবাসি। আপনার আব্বা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, আমরা উনাকে শ্রদ্ধা করি। এই বঙ্গবন্ধুকে কারা মেরেছে? কোনো মাদ্রাসার ছাত্র? কোনো আলেম-ওলামা? না, না। এই বঙ্গবন্ধুকে মেরে ফেলেছে বঙ্গবন্ধুর মানুষরা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনাকে সতর্ক করছি। আপনার ঘাড়ে যেসব নাস্তিকরা বসে আছে, তারাই আপনার ক্ষতি করবে, তারাই আপনাকে মেরে ফেলবে। আমরা আপনার দুশমন নই। আমরা দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা চাই।’

উল্লেখ্য, আল আমিন সংস্থা নামের একটি সংগঠন এই মাহফিলের আয়োজন করে। সংগঠনটির বেশির ভাগ নেতা-কর্মী হেফাজতে ইসলামের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

মাহফিলে প্রধান বক্তা থাকার কথা ছিল হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের। কিন্তু তিনি উপস্থিত ছিলেন না। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেওয়ায় মামুনুল হককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তাঁকে প্রতিহত করার ঘোষণা দেয় জঙ্গিবাদবিরোধী ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ। তাই এই মাহফিল ঘিরে আশপাশের এক কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত জোরদার পুলিশি পাহারা ছিল।

প্রশাসনের অনুরোধে মামুনুল হক ঢাকায় ফিরে গেছেন বলে মাহফিলে জানান জুনায়েদ বাবুনগরী। তিনি বলেন, ‘আমরা শান্তি চাই। সংঘাত চাই না। মামুনুল হকও সমাবেশে আসতে আগ্রহী ছিলেন না। আমরা তাঁকে আনতে আগ্রহী নই। কিন্তু তারপরও কিছু কুচক্রী হাটহাজারী বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন স্থানে মামুনুল হকের কুশপুত্তলিকা দাহ ও অশ্লীল স্লোগান দিয়েছে। এটি একজন আলেমের সঙ্গে বেয়াদবি।’

বাংলাদেশ জার্নাল/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত