ঢাকা, রোববার, ১৭ জানুয়ারি ২০২১, ৩ মাঘ ১৪২৭ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ২০:৪৮

প্রিন্ট

বৌভাতের অনুষ্ঠানে বরের জানাজা!

বৌভাতের অনুষ্ঠানে বরের জানাজা!
সংগৃহীত ছবি

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

বৌভাত অনুষ্ঠানের সকল কার্যক্রম চলছিল ধুমধাম করে। কনেপক্ষ গাড়িবহর নিয়ে উপস্থিতও হন বরের বাড়িতে। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানেই খবর ছড়িয়ে পড়ে বর মারা গেছেন।

বুধবার এমনই ঘটনা ঘটেছে পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার মাধবখালী ইউনিয়নের বাজিতা গ্রামে। বিয়ের সব আয়োজন রেখেই ওইদিন বিকাল ৫টায় বর রফিকুল ইসলামের (২৫) নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে স্বামীর মুত্যুর খবরে নববধূ ময়না আক্তার জ্ঞান হারিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকেও বরিশাল শের ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে বাবা-মা উভয়েই পাগল প্রায়।

পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার (৩০ নভেম্বর) মির্জাগঞ্জ উপজেলার মাধবখালী ইউনিয়নের বাজিতা গ্রামের সফেজ মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলামের সাথে পার্শ্ববর্তী বেতাগী উপজেলার বাসন্ডা গ্রামের মন্নান মিয়ার মেয়ে ময়না আক্তারের (১৮) বিয়ে হয়। কনের বাড়িতে বরযাত্রী নিয়ে উভয়পক্ষের সম্মতিতে বিয়ে সম্পন্ন হয়। ওইদিনই মেয়েকে বৌ সাজিয়ে নিয়ে আসা হয় বরের নিজ বাড়ি বাজিতা গ্রামে।

একদিন পরই মঙ্গলবার রাতে বর রফিক নিজের বাড়িতে স্বাভাবিক জ্বর নিয়ে একটু অসুস্থ বোধ করেন। বুধবার সকালে চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশাল শের ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

নির্ধারিত তারিখে (বুধবার) বর রফিকের বাড়িতে কনেপক্ষের জন্য বৌভাতের আয়োজন করা হয়। কনেপক্ষের লোকজন বরের বাড়িতে পৌঁছলেই খবর আসে রফিক আর বেঁচে নেই। তখনই বরে বাড়িতে সকল আনন্দ ম্লান হয়ে যায়। আত্মীয়-স্বজনসহ এলাকাবাসীর সান্তনা দেয়ার কোন ভাষা নেই।

নিহত রফিকুল ইসলামের চাচা পশ্চিম চৈতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আনসার উদ্দিন জানান, রফিকের বাবা সেনাবাহিনীর চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্টে রেকর্ড অফিসে (সিভিল বিভাগ) কর্মরত আছেন। একমাত্র ছেলেকে নিয়ে মা বাড়িতে থাকতেন। রফিক ও আমি রোববার একত্রে বিয়ের সকল কেনাকাটা করি। আজ আমাদের মাঝে সে আর নেই। সবকিছুই শেষ হয়ে গেল।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত