ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৫২

প্রিন্ট

পাবনা মানসিক হাসপাতালে রোগীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা দিবস উদযাপিত

পাবনা মানসিক হাসপাতালে রোগীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা দিবস উদযাপিত
পাবনা প্রতিনিধি

পাবনায় মঙ্গলবার‘রোগীর সুরক্ষার জন্য কথা বলুন’প্রতিপাদ্য নিয়ে পালিত হয়েছে রোগীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা দিবস। পাবনা মানসিক

হাসপাতাল বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবারই প্রথমবারের মতো এ দিবস পালনের নির্দেশনা দেয়।

পাবনা মানসিক হাসপাতালে পালিত কর্মসুচির মধ্যে ছিল, হাসপাতালে কমলা রংয়ের আলোক সজ্জা, রোগীর সুরক্ষা বিষয়ক সচেতনতা, আলোচনা সভা ইত্যাদি।

মানসিক হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর ড. ডা. তম্ময় প্রকাশ বিশ্বাসের সভাপতিত্বে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রোগীর সুরক্ষা বিষয়ক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সাইক্রিয়াটিক সোসাল ওয়ার্কার মকবুল হোসেন পাশার সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন মানসিক হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. দিলয়ারা আখতার, কনস্যালটেন্ট ডা. মাসুদরানা সরকার, মেডিকেল অফিসার ডা. ওমর ফারূক বুলবুল, ডা. জান্নাতুল ফেরদৌস বৈশাখী, ডা. মুন-ই-নাহার মুন, সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেনস, ওয়ার্ড মাষ্টার মো. আ. বারী ও আনিসুজ্জামান, মেট্রন শামীম আখতার, সুপার ভাইজার রফিকুল ইসলাম ও আ. কাদের, নাসিং সুপানভাইজার মাকুলেট মেরী সরকার, সিনিয়র ষ্টাফ নার্স সুমাইয়া তাহসীন, লাবনী খাতুন পুতুল রাণী দাস প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, একজন অসুস্থ মানুষ সুস্থতার আশায় হাসপাতালে ভর্তি হন। তাদের সুরক্ষা দানের জন্য সরকার আমাদের নিয়োজিত করেছেন। সে কারনে একজন রোগীকে সর্বোচ্চ সেবা প্রদান ছাড়াও তার সুরক্ষা ও ভাল ব্যবহার করা আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

পরিচালক ডা. তম্ময় প্রকাশ বিশ্বাস বলেন, একজন রোগগ্রস্থ ব্যাক্তি অসহায়। তার সুষ্ঠু স্বাস্থ্য সেবা প্রদান ও সুরক্ষা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য সেবার সাথে জড়িত সবাইকে এগিয়ে আসা দরকার। রোগীদের সুরক্ষার বিষয়টি মানসিক হাসপাতালে অতীত থেকেই প্রচলিত আছে। কিন্তু নির্দিষ্ট কোন দিবস না থাকায় সচেতনতা কম হতো।

এর আগে বেশ কিছু নার্স মানসিক রোগীদের হাতে শারিরিকভাবে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা বর্ণনা করে মানসিক রোগীদের সেবা দানকারী নার্সদের উদ্দেশ্যে পরিচালক প্রফেসর বিশ্বাস বলেন, রোগীদের কবল থেকে নিজের সুরক্ষার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রথমবারের মত দিবসটি উদযাপনের ঘোষনা দেয়ায় সকলের মাঝে সচেতনতার সৃষ্টির মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবার মান বৃদ্ধি পাবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত