ঢাকা, রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৫ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০২০, ১০:৫৭

প্রিন্ট

প্রাথমিকে অর্থ বরাদ্দ, ডিপিইর জরুরি নির্দেশনা

প্রাথমিকে অর্থ বরাদ্দ, ডিপিইর জরুরি নির্দেশনা
জার্নাল ডেস্ক

আগস্ট মানে বাঙালির শোকের মাস, বেদনার মাস। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল সেনাবাহিনীর কিছু উচ্ছৃঙ্খল ও বিপথগামী সদস্য।

সেদিন ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল।

পৃথিবীর এই ঘৃণ্যতম হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগনে শেখ ফজলুল হক মনি, তার সহধর্মিণী আরজু মনি, কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ সদস্য ও আত্মীয়স্বজন।

শোকের মাস উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবারো যথাযথ স্বাস্থ্য সুরক্ষাবিধি মেনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করেছে।

এদিকে জাতীয় শোক দিবস পালনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, ভার্চুয়াল মাধ্যমে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শোক দিবস পালনের নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। পাশাপাশি, শোক দিবস পালনে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়কে দুই হাজার টাকা করে দেয়া হবে।

মঙ্গলবার বিভাগীয় উপ-পরিচালকদের এ নির্দেশনা পাঠিয়ে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

গত ১৬ জুলাই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালনে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সে সভায় সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালনে এ কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে রয়েছে, আগামী ১৫ আগস্ট সব সরকারি-বেসরকারি আধাসরকারি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। ভার্চুয়াল মাধ্যম ব্যবহার করে এদিন সব সরকারি-বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা, কলেজ, মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শোক দিবসের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ আলোচনা সভা, কবিতা পাঠ, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, চিত্র প্রদর্শনী, হাম নাত প্রতিযোগিতা ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করবে।

এছাড়া সংসদ টেলিভিশনে শিক্ষার্থীদের জন্য বঙ্গবন্ধুর জীবনভিত্তিক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর জীবন ভিত্তিক ২৬টি বই সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংগ্রহ ও পাঠের ব্যবস্থা করা হবে এগুলো বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ও প্রতিযোগিতায় কৃতি শিক্ষার্থীদের পুরস্কার হিসেবে দেয়া হবে। শোক দিবস পালনে সব প্রাথমিক বিদ্যালয় পোস্টার বিতরণ করা হবে। এছাড়া এদিন বাদ জোহর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর মসজিদসহ দেশের সব মসজিদে বিশেষ মোনাজাত করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত