ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ৩১ জুলাই ২০২০, ২০:২৩

প্রিন্ট

সাক্ষাতকারে ডা. এজেডএম জাহিদ

স্বাস্থ্যের মহাপরিচালক বলির পাঁঠা হয়েছেন

স্বাস্থ্যের মহাপরিচালক বলির পাঁঠা হয়েছেন
ফাইল ছবি
কিরণ শেখ

ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন। তিনি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ডক্টর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) সাবেক মহাসচিব। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকার যেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে এবং করোনা টেস্টের ফি নির্ধারণসহ নানা বিষয়ে বাংলাদেশ জার্নালের সঙ্গে কথা বলেছেন ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন কিরণ শেখ

বাংলাদেশ জার্নাল: করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকার যেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে, সেগুলোকে আপনি কি যথেষ্ট বলে মনে করেন?

জাহিদ হোসেন: স্বাস্থ্য এবং যে সমস্ত মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য বিভাগ এর (করোনাভাইরাস) সঙ্গে জড়িত আছে- তাদের মধ্যে যে সমন্বয় হওয়ার কথা ছিল, সেটা হয়নি। বরং সমন্বয়হীনতার প্রকটভাবে ধরা পড়েছে। এর বাইরে সিদ্ধান্তহীনতাও তো রয়েছে। সুতরাং প্রকটভাবে সমন্বয়হীনতার ও দুর্বলতা আছে।

বাংলাদেশ জার্নাল: করোনা টেস্টের ফি নির্ধারণ করা হয়েছে, এবিষয়ে আপনার মতামত কী?

জাহিদ হোসেন: যখন পত্রিকায় আসলো যে রিজেন্ট হাসপাতাল টাকা নেয় তখন কিন্তু কেউ কিছু বললো না। তারপরে সরকার নিজেই করোনা টেস্টের জন্য ফি নির্ধারণ করেছে। সেকারণে অনীহা সৃষ্টি হয়েছে। আর যেখানে করোনা টেস্ট পর্যায়ক্রমে গিয়ে বৃদ্ধি হওয়া উচিত ছিল। সেটা কমে যাওয়ার অন্তর্নিহিত কারণ কী তা খুঁজে বের করা উচিত।

বাংলাদেশ জার্নাল: স্বাস্থ্যের ডিজির পদত্যাগকে আপনি কীভাবে দেখছেন?

জাহিদ হোসেন: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, ডিজি ও কর্মকর্তারা পরিবর্তন হলো। কিন্তু সিদ্ধান্ত যে পর্যায় থেকে এলো, ‘মন্ত্রী পর্যায় থেকে’। উনার ব্যাপারে তো কোন সিদ্ধান্ত এলো না? সিদ্ধান্ত কী আমলারা দেন না কি মন্ত্রীরা দেন? এখন বলির পাঁঠা হলো কে, ‘ডিজি’। বলির পাঁঠা কে হবে, ‘ডাইরেক্টরা’। এখন সচিবদের ও পরিচালককে বদল করা হচ্ছে।

‘এখন মন্ত্রী পর্যায়ে সিদ্ধান্ত হোক, খুঁজে বের করা হোক। আর এজন্য একটা বিচারবিভাগীয় কমিশন গঠন করে অনুসন্ধান করা হোক। আর যারা সিদ্ধান্ত দিয়েছেন তারা কিন্তু ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে। শুধু কি ডিজি ও পরিচালকদের দোষ? মন্ত্রীর কোন দায় নেই? এই দায় তো মন্ত্রী মহোদয়কে নেয়া উচিত। আর এই দায় নিয়ে উনা’র পদত্যাগ করা উচিত।’

বাংলাদেশ জার্নাল: রিজেন্ট হাসপাতালে করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট দিয়েছে- এ বিষয়টি আপনি কীভাবে দেখছেন?

জাহিদ হোসেন: এই হাসপাতালকে এতো গুরুত্ব কারা দিলো? তাই এটা যারা মনিটরিং করেছে। যারা সরকারকে ডুবাইছে, সরকারের উচিত তাদেরকে খুঁজে বের করা। আজকে সাহেদকে যদি গ্রেপ্তার করেন তাহলে তার জন্য যারা তদবির করেছে এবং যারা অনুমতি দিয়েছে- সেই লোকগুলোরও তো গ্রেপ্তার হওয়া উচিত।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত