ঢাকা, সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭ আপডেট : ৩৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১৭:২৪

প্রিন্ট

প্রতারণা করেছিলেন ম্যারাডোনা: শিল্টন

প্রতারণা করেছিলেন ম্যারাডোনা: শিল্টন
ম্যারাডোনাকে এখনো ক্ষমা করেননি শিল্টন

স্পোর্টস ডেস্ক

চলে গেলেন ফুটবলের রাজপুত্র ডিয়েগো ম্যারাডোনা। ৬০ বছর বয়সে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বুধবার প্রয়াত হয়েছেন ফুটবলের এই কিংবদন্তী। তার মৃত্যুতে ক্রীড়াঙ্গনের সকলেই তার সৃতিচারণে ব্যস্ত। এর ব্যতিক্রম নন ইংল্যান্ডের সাবেক গোলরক্ষক পিটার শিল্টন। তার বিপক্ষে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপের কোয়াটর ফাইনালে হাত দিয়ে গোল করেছিলেন ম্যারাডোনা। যা ইতিহাসের পাতায় 'হ্যান্ড অফ গড বা ঈশ্বরের হাত' নামে পরিচিত। তবে এরপর ৩৪ বছর পার হয়ে গেলেও আজও ম্যারাডোনাকে ক্ষমা করতে পারেননি তিনি।

ম্যারাডোনার মৃত্যুর খবর স্পর্শ করেছে ৭১ বছর বয়েসী শিলটনকে। ব্রিটিশ দৈনিক দ্য ডেইলি মেইলে শোক জানাতে গিয়ে লিখেছেন কলাম। কলামে ম্যারাডোনার প্রয়াত হওয়া নিয়ে শোকের পাশাপাশি ম্যারাডোনার স্পোর্টসম্যানশিপ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

ম্যারাডোনা সেদিন পরিষ্কার প্রতারণা করেছিলেন বলে শিল্টন লিখেছেন, 'আমার আপত্তি হলো এই ঘটনা (হ্যান্ড অফ গড) নিয়ে সে কখনো মাফ চায়নি। সে কখনো বলেনি যে আমাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা করেছিল। কখনো বিষয়টি নিয়ে ব্যথিতও হয়নি। উপরন্তু বিষয়টিকে সে 'হ্যান্ড অফ গড' আখ্যা দিয়েছে। এটা ঠিক ছিল না।

তিনি আরও লিখেছেন, ‘অনেক বছর এই গোলের ক্ষত আমাকে পুড়িয়েছে। আমি মিথ্যা বলতে পারব না। লোকে বলে আমি বলটা ক্লিয়ার করতে পারতাম কিন্তু খাটো লোককে লাফাতে দিয়েছি। এটা বাজে কথা। সে পাঞ্চ না করলে হেড করতে পারত কি? অবশ্য না। কেউই আশা করেনি কি হতে যাচ্ছে। সে লাফিয়ে উঠে আমাকে চ্যালেঞ্জ করল কিন্তু মাথা লাগালো না, হাত দিয়ে পাঞ্চ করে দিল। এটা পরিষ্কার অন্যায়, প্রতারণা। তার গ্রেটনেস ছিল কিন্তু দুঃখজনকভাবে স্পোর্টসম্যানশিপ ছিল না।’

এই ঘটনার পর ৩৪ বছর পার হয়ে গিয়েছে। তবে এই ৩৪ বছরে শিল্টন ম্যারাডোনার মুখোমুখি হননি একবারও। বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও টক শোতে তাদের দুজনকে একত্রিত করার চেষ্টা করলেও শিল্টন সে পথে হাঁটেননি।

তবে ঘটনাটিকে তিনি পছন্দ না করলেও ম্যারাডোনার প্রতি শিল্টনের কোন ক্ষোভ নেই। শিল্টন লিখেছেন, 'ম্যারাডোনার সঙ্গে আমার জীবনের একটি ঘটনা ওতপ্রোতভাবে জড়িত। যদিও সেই ঘটনাকে আমি পছন্দ করিনি কখনো। তবে তার মৃত্যুতে ব্যথিত হয়েছি। বিতর্কহীনভাবে সে একজন কিংবদন্তি ও বড় মাপের খেলোয়াড় ছিল। আমি যাদের বিপক্ষে খেলেছি তাদের মধ্যে সেরা ছিল সে।'

১৯৮৬ সালের ওই ম্যাচে আর্জেন্টিনা জয়লাভ করে ২-১ গোলে। দুইটি গোল করেছিলেন ম্যারাডোনা। তবে তার প্রথম গোল নিয়ে বিতর্ক থাকলেও দ্বিতীয় গোলটি ছিল ফুটবলের নিখুঁত যাদু। ইংক্যান্ডের পিটার বেয়ার্ডসলে, টেরে বুচার, পিটার রিড ও টেরি ফেনউইককে দারুণ ভাবে কাটিয়ে গোলরক্ষক শিল্টনকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ান ম্যারাডোনা।

তবে শিল্টন অবশ্য মনে করেন প্রথম গোলটি না হলে দ্বিতীয় গোলটিও আসত না, ‘দ্বিতীয় গোলটি দুর্দান্ত। তবে আমি মনে করি প্রথম গোলটি না হলে দ্বিতীয় গোলটি আসত না।’

বাংলাদেশ জার্নাল/ডব্লিউএ/টিআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত