ঢাকা, বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০২০, ০২:৫০

প্রিন্ট

পোষা হাতির চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ স্থানীয়রা

পোষা হাতির চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ স্থানীয়রা
পাবনা প্রতিনিধি

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় পোষা হাতি দিয়ে সেলামির নামে কৌশলে চলছে চাঁদাবাজি। গত এক সপ্তাহ ধরে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ও দোকনাপাট থেকে এ চাঁদাবাজি করছে হাতির মাহুতেরা। এতে অতিষ্ঠ হয়ে গেছেন ব্যবসায়ী ও স্থানীয় জনসাধারণ।

বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টায় ভাঙ্গুড়া পৌরসভা এলাকায় দেখা যায়, একটি হাতির পিঠে বসে বসা সজল (৩০) নামের এক মাহুত (হাতির রাখাল)। তার সঙ্কেত বুঝে পোষ মানা হাতি সড়কের পাশে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে গিয়ে শুঁড় উঁচিয়ে রাখছে ( মাহুতের ভাষায় সালাম দিচ্ছে)। এরপর শুরু হয় হাতির গর্জন। টাকা না দেয়া পর্যন্ত চলে সে গর্জন। টাকা পেলে মাহুতের সঙ্কেতে গর্জন থামে হাতির। দোকানিরা বাধ্য হয়ে ২০ টাকা থেকে ৫০ টাকা করে সেলামি দেয় মাহুতকে।

আনোয়ার হোসেন নামের এক দোকানদার বলেন, হাতি দোকানে এসে শুঁড় উঁচিয়ে সালাম দিলেই তো সেলামি দিতে হয়। তিনি জানান, ৫- ১০ টাকা নিলে দোকানিরা খুশি হয়েই দেন। কিন্তু মাহুতেরা কৌশলে হাতি দিয়ে হয়রানি করে ও সময় নষ্ট করে। এটি দু:খজনক।

রিক্সা চালক হেলাল উদ্দিন ও অটোরিকসা চালক আমিনুল ইসলামসহ অনেকে জানান, হাতি দিয়ে সড়কের উপর গাড়ি থামিয়ে টাকা আদায় করাতে যানজট হচ্ছে। এতে যাত্রীদের মূল্যবান সময় নষ্ট হয়ে যায়।

জানতে চাইলে হাতির পরিচালনাকারী (মাহুত) সজল বলেন, তার হাতির খাবারের জন্য বাধ্য হয়ে দোকানে দোকানে ঘুরে বা বিভিন্ন গাড়ি থামিয়ে টাকা তুলতে হয়।

এ ব্যাপারে ভাঙ্গুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, হাতি দিয়ে চাঁদা আদায়ের বিষয়ে এখনও কেউ কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। তবে বিষয়টি খুব দু:খজনক ও আইন বহির্ভূত কাজ।

তিনি বলেন, খোঁজ নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ নেয়া হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত