ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:৫৫

প্রিন্ট

বেতন নিয়ে কথা বলায় ৮০ পোশাক শ্রমিক ছাটাই

কানিজ গার্মেন্টসে শ্রমিক ছাটাই, প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ
নিজস্ব প্রতিবেদক

বকেয়া টাকা নিয়ে কথা বলায় ৮০ জন পোশাক শ্রমিককে চাকরি থেকে ছাটাই করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে কানিজ গার্মেন্টস লি. নামে একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। শ্রমিকদের পক্ষে কথা বলা ও নতুন বছরের বেতন বোনাস চাওয়ায় তাদের চাকরি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে বলে দাবি শ্রমিকদের।

এদিকে শ্রমিক ছাটাইয়ের প্রতিবাদে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে সড়ক অবরোধ করে কারখানার শ্রমিকরা। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে তেজগাঁও এলাকার নাবিস্কো মোড়ের দু’পাশে তারা অবস্থান নেন। এ সময় যানচলাচল বন্ধ করে সড়কে দাঁড়িয়ে ও বসে পড়েন তারা। সড়ক অবরোধের ফলে মগবাজার থেকে তেজগাঁও এবং বনানীর কাকলী এলাকা পর্যন্ত তীব্র যানজট দেখা দেয়।

তবে মালিক পক্ষ বলছে, এই শ্রমিকরা কাজের পরিবেশ নষ্ট করে তাদের ব্যবসার ক্ষতির চেষ্টা করছিল। পুলিশ বলছে, আমরা আইনশৃংখলা বজায় রাখতে তাদের সেখান থেকে সরিয়ে দিয়েছি।

কারখানাটির সামনে ছাটাই করা ৮০ জন শ্রমিকের তালিকা টানিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। সেখানে নিজের নাম আছে কি-না তা দেখার জন্য কারখানাটির সামনে আসেন আকলিমা খাতুন। এই তালিকায় তার নাম না থাকায় সস্থির সিঃশ্বাস ফেলছেন তবে তার পাশেই কাজ করে আকে জনের নাম থাকায় দুঃখ প্রকাশ করেন।

তিনি জানান, এই কারখানাটিকে ছেলের সংখ্যা অনেক কম। তারা ছেলেদের নিতে চায় না। ছেলে থাকলে তাদের অনেক সমস্যা হয়। বিভিন্ন অন্যায় আবদার বা বেতন না দিলে ছেলেরাই সবার আগে প্রতিবাদ করে। আমরা মেয়েরা তো সাহস করে কিছু বলতে পারি না। এখানে চাকরি থেকে বাদ দেয়ার অধিকাংশই বিভিন্ন সময় অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছিল। এ জন্যই তাদের বাদ দেয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, বাদ দেয়া শ্রমিকদের অধিকাংশই ১০ বছরের বেশি সময় ধরে এ প্রতিষ্ঠানটিতে কাজ করে আসছেন। এ জন্য তাদের বেতন বোনাসও অনেক বেশি হয়ে গেছে। প্রতিবছর তাদের যে বেতন বাড়ার কথা তা এ বছর বাড়ায়নি। না বড়িয়ে এখন তাদের চাকরি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে।

কারখানাটিতে মালিক পক্ষের কাউকে পাওয়া না গেলেও প্রধান নিরাপত্তা রক্ষী তৌফিক বলেন, যাদের বাদ দেয়া হয়েছে তারা কাজের পরিবেশ নষ্ট করছিল। তাদের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ থাকায় বাদ দেয়া হয়েছে। আগামীকাল আমাদের কারখানা খুলবে, আবারো আগের মত সুন্দর পরিবেশ বজায় থাকবে।

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার ওসি আলী হোসেন বলেন, শ্রমিকরা রাস্তা অবরোধ করে যানচলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল। আমরা তাদের সেখান থেকে সরিয়ে দিয়েছি। এখন যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কারখানিটির সামনে যেন কোনো সমস্যা না হয় সে জন্য সেখানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার শ্রমিকদের বিষয়টি নিয়ে ঢাকার উত্তরায় বিজিএমইএ এর প্রধান কার্যালয়ে এক সমঝোতা চুক্তিসাক্ষর হয় । এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ এর সিনিয়র অতিরিক্ত সচিব (সিএমসি) অ্যাডভোকেট মুনসুর খালেদ।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত সচিব (শ্রম) রফিকুল ইসলাম ও বিজিএমইএ এর সিনিয়ির উপ-সচিব (সিএমসি), আবুল হোসেন।

সরকার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকার শ্রম পরিদর্শক (সা.), কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর নুরুল আমীন। কারখানার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, কাজী গোলাম আলী, পরিচালক, কাজী সাখাওয়াত হোসেন, কানিজ গার্মেন্টস লি. এর সিওও ইমতিয়াজুর রহমান এবং শ্রমিক পক্ষের প্রতিনিধি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নাহিদুল হাসান নয়ন, খাদিজা আক্তার, সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন ও কারখানার শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দসহ ২৫ জন শ্রমিক।

বিস্তারিত আলাপ আলোচনা শেষে ১২ দফা সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। শ্রমিকদের অর্জিত ছুটির টাকা প্রতি বছর জানুয়ারি মাসে প্রদান করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত