ঢাকা, শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৩:২৭

প্রিন্ট

যে রীতিতে সৃজিত-মিথিলা বিয়ে করছেন!

যে রীতিতে সৃজিত-মিথিলা বিয়ে করছেন!
বিনোদন ডেস্ক

জনপ্রিয় অভিনেত্রী রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা। অবশেষে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন। কলকাতার জনপ্রিয় পরিচালক সৃজিত মুখার্জিকে বিয়ে করছেন মিথিলা। এই বিয়ে তাদের দুজনেরই দ্বিতীয় বিয়ে।

বৃহস্পতিবার ভারতীয় গণমাধ্যম এই সময়’কে তারাই এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বলেছেন, শুক্রবার সন্ধ্যায় বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন তারা। এর আগে অবশ্য খবর রটেছিল, মিথিলা-সৃজিত ২০২০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বিয়ে করছেন।

এদিকে বিয়ের জন্য এরই মধ্যে কলকাতায় অবস্থান করছেন মিথিলার পরিবারের সদস্যরা। এই উপলক্ষে ঢাকা থেকে কলকাতায় গেছে দুই কেজি ওজনের চারটি ইলিশ।

এদিকে জোর আলোচনা চলছে কোন রীতিতে বিয়ে করবেন দুই বাংলার দুই সেলিব্রেটি? এই প্রশ্নের উত্তর এখন পর্যন্ত পাওয়া না গেলেও ভারতীয় গণমাধ্যম এই সময় তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আজ সন্ধ্যায় কলকাতায় মিথিলা-সৃজিতের রেজিস্ট্রি বিয়ে হবে, বিয়ের অনুষ্ঠান বেশ বড় না করে পরে বিশাল আয়োজন করা হবে।

সূত্রটি আরও বলছে, আজ ৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় রেজিস্ট্রি করেই একে অন্যের সঙ্গে সারাজীবন কাটানোর জন্য অঙ্গীকারবদ্ধ হচ্ছেন মিথিলা-সৃজিত। এরই মধ্যে মিথিলার বাবা-মা, পরিবারের লোকজন পৌঁছে গেছেন কলকাতায়। সৃজিতের মা, দিদি উপিস্থিত থাকছেন বিয়েতে। আর সৃজিত-মিথিলার প্রাণভোমরা মিথিলার মেয়ে আয়রাও থাকছে বিয়েতে। এছাড়াও উপস্থিত থাকছেন সৃজিতের টলিউডের পরিবার রুদ্রনীল, শ্রীজাত, ইন্দ্রদীপ, যিশু, নীলাঞ্জনা, অনুপম ও পিয়া।

জানা গেছে, দ্বিতীয় বিয়েতে সৃজিত পরবেন পাজামা, পাঞ্জাবি, জহরকোট। মিথিলা পরছেন লাল জামদানি।

সৃজিতের কোন দিকটা তাকে সবচেয়ে আকর্ষণ করে? এমন প্রশ্নের উত্তরে মিথিলা বলেন, আমি আর সৃজিত দু’জনেই কাজপাগল। আবার আমরা ভীষণ অলস। এটা বলে বোঝানো যায় কি না জানি না। কিন্তু এতেই আমাদের আসল মিল।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, রেজিস্ট্রি ম্যারেজের পর টলিউডের সকল অতিথিদের নিয়ে বিশেষ পার্টি হবে। আজ মুখোপাধ্যায় বাড়িতে খাওয়াদাওয়া শুরু দুপুর থেকে। খাঁটি বাঙালি রান্না। সন্ধ্যায় বিরিয়ানি হবে। খোঁজ নিয়ে জানা গেল জামাইয়ের জন্য দু’ কেজি ওজনের চারটি ইলিশ এসেছে পদ্মা থেকে।

প্রসঙ্গত, জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী তাহসানের সঙ্গে মিথিলার বিয়ে হয় ২০০৬ সালের ৩ আগস্ট। তাদের বিবাহবিচ্ছেদ হয় ২০১৭ সালের জুলাই মাসে।

২০১০ সালে সৃজিতের প্রথম চলচ্চিত্র অটোগ্রাফ বাণিজ্যিকভাবে সফল হয় এবং সমালোচকদের দ্বারা প্রশংসিত হয়। তার ‘জাতিস্মর’ ছবিটি চারটি পুরস্কার জিতে নেয়। ‘চতুষ্কোণ’ সিনেমাটির জন্য তিনি সেরা পরিচালক এবং সেরা চিত্রনাট্য বিভাগে পুরস্কার জিতে নেন।

সৃজিতের পরিচালিত ‘রাজকাহিনি’ চলচ্চিত্রটি হিন্দিতে ‘বেগম জান’ শিরোনামে পুনঃনির্মিত হয়েছে। তার কয়েকটি চলচ্চিত্র হলো ‘বাইশে শ্রাবণ’, ‘হেমলক সোসাইটি’, ‘মিশর রহস্য’, ‘জাতিস্মর’, ‘চতুষ্কোণ’, ‘নির্বাক’ ইত্যাদি।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত