ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ৩১ বৈশাখ ১৪২৮ আপডেট : ১৫ মিনিট আগে

প্রকাশ : ১১ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০

প্রিন্ট

সাতদিনে মৃত্যু ৪৪৮, শনাক্ত প্রায় ৪৯ হাজার

সাতদিনে মৃত্যু ৪৪৮, শনাক্ত প্রায় ৪৯ হাজার
ছবি: ইলিয়াস সাজু

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। লকডাউন বা বিধিনিষেধ আরোপের পরেও সংক্রমণ ও মৃত্যুহার ঊর্ধ্বমুখী থাকায় সঙ্কট আরো বাড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এর মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত এক সপ্তাহে দেশে রেকর্ডসংখ্যক ৪শ’ ৪৮ জন হয়ে মারা গেছে। এ সময়ে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪৮ হাজার ৬৬০ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তি বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য জানা গেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার) করোনায় দেশে রেকর্ডসংখ্যক ৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৫ হাজার ৩৪৩ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ৪ এপ্রিল ৫৩ জন, ৫ এপ্রিল ৫২ জন, ৬ এপ্রিল ৬৬ জন, ৭ এপ্রিল ৬৩ জন, ৮ এপ্রিল ৭৪ জন, ৯ এপ্রিল ৬৩ জন এবং ১০ এপ্রিল ৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে মৃত্যুর হার ৩০ শতাংশ বেড়েছে। গত ২৮ মার্চ থেকে ৩ এপ্রিল পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্ত মোট ৩৪৪ জনের মৃত্যু হয়। আর ৪ এপ্রিল থেকে ১০ এপ্রিল- এই ৭ দিনে মারা গেছেন ৪৪৮ জন।

গত এক সপ্তাহে ২ লাখ ২০ হাজার ৮২৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, যা আগের সপ্তাহের চেয়ে ১৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেশি।

এক সপ্তাহে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা মোট ৪৮ হাজার ৬৬০ জন। এই সংখ্যা আগের সপ্তাহের চেয়ে ২৬ দশমিক ৪৮ শতাংশ বেশি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত ৪ এপ্রিল ৭ হাজার ৮৭ জন, ৫ এপ্রিল ৭ হাজার ৭৫ জন, ৬ এপ্রিল ৭ হাজার ২১৩ জন, ৭ এপ্রিল ৭ হাজার ৬২৬ জন, ৮ এপ্রিল ৬ হাজার ৮৫৪ জন, ৯ এপ্রিল ৭ হাজার ৪৬২ জন এবং ১০ এপ্রিল ৫ হাজার ৩৪৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে সুস্থও হয়েছে বেশি রোগী। সুস্থ রোগীর সংখ্যা ৪২ দশমিক ৫৮ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। সেসময় থেকে টানা সাত দিনে এত রোগী শনাক্ত হয়নি।

দেশে এ পর্যন্ত মোট ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৯৩৭ জনের করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯ হাজার ৬৬১ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ৭২ হাজার ৩৭৮ জন।

অন্যদিকে দ্বিতীয় দফায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ার গত ৫ এপ্রিল থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত এক সপ্তাহের জন্য কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছিলো সরকার। যা লকডাউন হিসেবেই পরিচিতি পায়। আজ এর শেষদিন হলেও ধারাবাহিকভাবে ১২ ও ১৩ এপ্রিলও চলবে। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হবে সাতদিনের কঠোর লকডাউন।

এবিষয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে সারাদেশে সাত দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হবে। এই সময়ে জরুরি সেবা ছাড়া সরকারি, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিতসহ সব ধরণের অফিস এবং একই সাথে কল কারখানাও বন্ধ থাকবে। কঠোর লকডাউনের সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

কেএস/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত