ঢাকা, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ আপডেট : ৫ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:৩৬

প্রিন্ট

মসজিদে হিন্দু বিয়ে, কারণ জানেন কি?

মসজিদে হিন্দু বিয়ে, কারণ জানেন কি?
অনলাইন ডেস্ক

মুসলিমদের পবিত্র উপাসনালয় মসজিদ। আর সেই মসজিদের অভ্যন্তরেই কিনা মন্ত্র পড়েবিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলেনএক হিন্দু নর-নারী! কারণ জানলে মুসলিম হিসাবে আপনার বুক গর্বে ফুলে উঠবে।

ভারতের গোড়াপন্থী হিন্দু দলগুলো যখন দেশটিকে মুসলিমশূন্য করার পাঁয়তারা করছে তখন দেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন সেখানকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়টি। রোববার কেরালা আলাপুঝার চেরুভাল্লি মুসলিম জামাত মসজিদে ওই হিন্দু বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম আনন্দবাজার জানায়, কেবল বিয়ের আনু্ষ্ঠানিকতা নয়, এই বিয়ের সব রকমের আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ওই মসজিদ কমিটির লোকজন। আরো স্পষ্ট করে বললে, তাদের সাহায্য ছাড়া দরিদ্র পরিবারের মেয়ে অঞ্জুকে বিয়ে দেয়া কোনোভাবেই সম্ভব ছিল না

বিয়ে উপলক্ষে মসজিদটি সাজোনো হয়েছিল নান্দনিকভাবে। সেই মসজিদ চত্বরে হিন্দু মতেই শরৎ এবং অঞ্জুর বিয়ে দেন এক পুরোহিত। বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন হিন্দু-মুসলিম দুই সম্প্রদায়েরই অতিথিরা। তাদের আপ্যায়ন করা হয় কেরলের ঐতিহ্যবাহী নিরামিষ ভোজ দিয়ে।

পত্রিকাটি আরো জানায়, অঞ্জুদের পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। সেই কারণে মসজিদ কমিটির কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন অঞ্জুর মা। মেয়ের বিয়ের আয়োজন করে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিলেন তিনি। তার সেই আবেদনে সাড়া দেন মসজিদ কর্তৃপক্ষ। অঞ্জুকে বিয়ের উপহার হিসেবে ১০টি স্বর্ণমুদ্রা এবং দু’লক্ষ টাকা দিয়েছেন তারা। পাশাপাশি সহস্রাধিক লোকজনের খাওয়া-দাওয়ারও ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

ফেসবুকে নবদম্পতি শরৎ এবং অঞ্জু, তাদের পরিবার এবং মসজিদ কমিটিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। তার মতে, কেরালা সব সময়েই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এমন সুন্দর উদাহরণ বহন করে এসেছে। এই রীতি আগামী দিনগুলোতেও বজায় রাখতে হবে।

ফেসবুকে শরৎ-অঞ্জুর বিয়ের ছবি শেয়ার করে বিজয়ন লিখেছেন, ‘এই বিয়ে এমন সময় হল, যখন দেশে ধর্মের নামে মানুষের মধ্যে বিভাজন ঘটানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। কেরালা সবসময় ঐক্যবদ্ধ ছিল এবং আমরা এভাবেই ঐক্যবদ্ধই থাকব।’

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত