ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭ আপডেট : ৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০১৯, ১১:১৫

প্রিন্ট

পাকিস্তান-ভারতকে শান্ত থাকার আহ্বান জাতিসংঘের

পাকিস্তান-ভারতকে শান্ত থাকার আহ্বান জাতিসংঘের
অনলাইন ডেস্ক

কাশ্মীর ইস্যুতে সৃষ্ট উত্তেজনার মধ্যে প্রতিবেশী দুই দেশ পাকিস্তান ও ভারতের প্রতি সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। রোববার রাতে মোদি সরকার ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে ১৪৪ ধারা জারি করার প্রেক্ষিতে এ আহ্বান জানালো জাতিসংঘ।

ই-মেইলে দেওয়া এক প্রশ্নের উত্তরে জাতিসংঘের মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেন, ‘সাম্প্রতিক দিনগুলোতে ভারত ও পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণ রেখায় সামরিক তৎপরতা বৃদ্ধির ঘটনা জাতিসংঘ সামরিক পর্যবেক্ষক দলের নজরে এসেছে। পরিস্থিতির যাতে আরও অবনতি না ঘটে সেজন্য জাতিসংঘ উভয়পক্ষকে সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানাচ্ছে।’

১৯৪৯ সালের জানুয়ারিতে কাশ্মীরের বিতর্কিত অঞ্চলে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধবিরতি তদারকি করার জন্য শান্তিরক্ষী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল। পাকিস্তান জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদের নিয়ন্ত্রণ রেখার উপর নজরদারি করার অনুমতি দিলেও ভারত তা দেয়নি।

রাওয়ালপিন্ডিতে অবস্থানরত জাতিসংঘের ৪৪ সদস্যের ওই সামরিক পর্যবেক্ষক দলে ২৫ জন আন্তর্জাতিক বেসামরিক কর্মী এবং ৪৭ জন স্থানীয় বেসামরিক কর্মচারী রয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোববার রাতে হঠাৎ করেই রাজধানী শ্রীনগর আর জম্মু অঞ্চলে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। একই সঙ্গে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের সব স্কুল-কলেজ। পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রধান মেহবুবা মুফতি, ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লাহ ও পিপলস কনফারেন্স নেতা সাজাদ লোনবেশ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতাকে গৃহবন্দি করা হয়েছে। গোটা রাজ্যে মোবাইল টেলিফোন আর ইন্টারনেট সেবা বন্ধ রয়েছে।

এদিকে ভারত শাসিত কাশ্মিরের বাসিন্দাদের বিশেষ সাংবিধানিক অধিকার বাতিলের আশঙ্কার মধ্যে রাজ্যের বহু স্থানে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে মোবাইল ইন্টারনেট, নিষিদ্ধ করা হয়েছে সভা-সমাবেশ। রবিবার রাত থেকে সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাহকে গৃহবন্দি করে রেখেছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। নিজ বাড়িতে নজরদারির মধ্যে রয়েছেন সেখানকার আরেক গুরুত্বপূর্ণ রাজনীতিবিদ ও পিপলস কনফারেন্স পার্টির চেয়ারম্যান সাজাদ লোন।

এ অবস্থায় কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘মধ্যস্থতা’করার জোর দাবি জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

সূত্র: ডন

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত