ঢাকা, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ৯ আষাঢ় ১৪২৮ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

প্রকাশ : ০৯ জুন ২০২১, ১৪:৫৭

প্রিন্ট

নগরীতে বর্ষার ঝাপটায় লড়াকু জীবন (ফটোফিচার)

নগরীতে বর্ষার ঝাপটায় লড়াকু জীবন (ফটোফিচার)

জার্নাল ডেস্ক

জ্যৈষ্ঠ মাসের ২৬ তারিখ। পঞ্জিকার হিসেবে আষাঢ আসার আরও কয়েকটা দিন বাকি। তবু বর্ষার আমেজ বইছে সারাদেশে। বৃষ্টিতে ভিজছে নগরজীবন।

দিনের শুরু থেকেই আকাশে ছিল রৌদ্র-মেঘের লুকোচুরি। ঘরে-বাইরে ভ্যাপসা গরমের অস্বস্তি নিয়ে বেলা বেড়ে যায়। সূর্যের তেজ কমতে থাকে দুপুরের দিকে। ঘণ কালো মেঘে ছেয়ে যায় আকাশ। ভর দুপুরে রাজধানীতে ঝুপ করে নামে অন্ধকার। সড়কের গাড়িগুলো হেডলাইট জ্বালানোর আগেই বড় বড় ফোটায় ঝরে ঝুম বৃষ্টি।

বৃষ্টি বা ঝড়, তাতে মেহনতি মানুষের কিবা আসে যায়! বৃষ্টির বিলাসিতা তাকে কি মানায়? রোদে পুড়ে বা বৃষ্টিতে ভিজে কাজ করাকে ওরা নিয়তি জানে। জীবন তাদের বাঁধা জীবিকার চাকায়।

পুরান ঢাকার আব্দুল গণি রোড টিসিবির ট্রাক দাঁড়ানো ছিল। করোনাকালে নিত্যপণ্য কমে কিনতে লাইনে দাঁড়িয়েছিল গরিবেরা। বৃষ্টির মুষলধারা তাদের দাবাতে পারেনি। মেঘের হুমকিতে ছাতা নিয়েই অনেকে ঘর ছেড়েছিল। বৃষ্টি তাদের দ্রুত পণ্য কেনার সুযোগ করে দিল।

রাস্তার ওপাশে টিনশেড কলোনি থেকে আসা কিশোরী ছাতা অনেনি। ঘরের একমাত্র চাইনিজ ছাতা নিয়ে মিলব্যারাকের কাজে গেছে বাবা। মা পাঠালো লাইনে দাঁড়াতে। লালসালু বাঁধা ট্রাকের কাছে যেতে না যেতেই বর্ষণ শুরু। বৃষ্টি কিশোরীকে সরাতে পারেনি। কম দামে টিসিবির তেল-পেঁয়াজ-ডাল কেনার কাছে বৃষ্টিতে ভেজা তার কাছে মামুলি বিষয়।

কেনা পণ্যের ব্যাগে ঢেকে যায় বৃষ্টিকে হারানো কিশোরীর বিজয়ী হাসি। লেখা: বিপুল হাসান/ আলোকচিত্র: ইলিয়াস সাজু বাদশা।

বাংলাদেশ জার্নাল- ওআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত