ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৯, ১৮:২৪

প্রিন্ট

‘বিএনপিতে গতিশীলতা না আসার জন্য তারেক দায়ী’

‘বিএনপিতে গতিশীলতা না আসার জন্য তারেক দায়ী’
ফাইল ফটো
অনলাইন ডেস্ক

বিএনপিতে গতিশীলতা না আসার জন্য তারেক রহমানকে দায়ী করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। সম্প্রতি একটি গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপির রাজনীতির দূরবস্থার জন্য তারেক রহমান কতটা দায়ী? এ প্রশ্নের জবাবে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, তারেক রহমানের ওপরে সবটা চাপিয়ে দেয়া ঠিক হবে না। তবে গতিশীলতা না আসার জন্য তারেক দায়ী। আমি অনেক দিন আগেই বলেছিলাম তুমি দুই বছর দল থেকে অব্যহতি নাও। একটা মাস্টার্স বা ডিগ্রি করো। এখানে যারা আছে এরা সবাই এখন তাকিয়ে থাকে অহী কখন আসবে। ফলে এটা ওনার দোষ না, দোষ হচ্ছে এদের। তারেক সরে না দাঁড়ালে এরা তার অযুহাত দিয়ে নিস্ক্রিয় থেকে যাবে। এতে দলের ভয়ানক ক্ষতি হবে। অলরেডি হয়েছে, আরো হবে।

বর্তমান পরিস্থিতি থেকে বের হওয়ার জন্য বিএনপির কি কি কাজ করা উচিত, এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাকে এই প্রশ্ন না করে বিএনপিকেই এই প্রশ্ন করা দরকার। আমি তাদের অ্যাডভাইজারও না, সদস্যও না সুতরাং আমার এখানে নাগ গলানো উচিত না। তারা এতো বড় দল, তিনবার সরকার গঠন করেছে। তাই এই সংকট থেকে উত্তরণের পথ তাদেরকেই খুঁজে বের করতে হবে। তবে হ্যাঁ, আমি তাদেরকে অনেক আগেই বলেছিলাম, তাদের একটি ইমার্জেন্সি (জরুরি) কাউন্সিল করা উচিত। তারা একজন অপর জনের ছিদ্র। নিজেরাই নিজেদের দোষ খুঁজে বেড়ায়। ফলে বিএনপি নিষ্ক্রিয় হয়ে বসে আছে। আর বসে বসে ইস্টেটমেন্ট দেয়, এটার কোন মানেই হয় না। কাউন্সিল না করতে পারলেও তাদের কমবাইন্ড একটা মিটিং করে কিভাবে তারা অগ্রসর হবে সেই সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত।

বিএনপিকে পরামর্শ দিতে গিয়ে তিনি বলেন, বিএনপিকে এখন জনগণের নিকট যেতে হবে। আর এটা না পারলে জনগণ খালেদা জিয়াকে ভুলে যাবে। জেলা শহরে এবং বিভাগীয় শহরে স্থায়ী কমিটি এবং জাতীয় কমিটি যেতে পারে। তাহলে তাদের দলীয় কার্যক্রমে একটা গতিশীলতা আসবে। যেটা তাদেরকে পূর্বের স্থানে যেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। বর্তমানে বিএনপি বিভাগীয় শহরে সফরের যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে এটা খুব ভালো উদ্যোগ। এজন্য তাদের উচিত হবে প্রত্যেক জায়গায় স্থায়ী কমিটির সকল সদস্যের উপস্থিত থাকা। বিভাগীয় শহরে সফরের মাধ্যমে বর্তমান পরিস্থিতি থেকে বিএনপির বেরিয়ে আসা সম্ভব।

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে গণস্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠাতা বলেন, শুধু খালেদা জিয়াই নয়, আমার মতে তাদের প্রায় ৪০ হাজার লোক জেলে আছে। আর অনেক গায়েবি মামলা হয়েছে। সকলকে নিয়ে একদিন তাদের হাইকোর্টে এসে হাজির হওয়া উচিত। প্রধান বিচারপতিকে বলা উচিত আমাদের প্রতি অন্যায় হচ্ছে, আপনি আমাদেরকে আজগবি মামলা ও গায়েবি মামলা থেকে রেহাই দিন। হাইকোর্টে যদি তারা ৫০ হাজার লোক নিয়ে উপস্থিত হয় এবং আবেদন করে তাহলে কোর্ট একটা সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হবে। এখন তো সরকার যেভাবে বলতেছে সেইভাবে বিচার বিভাগ চলছে। এর প্রেক্ষিতে আজকের প্রধান বিচারকের একটা দায়িত্ব রয়েছে। জনগণের স্বার্থ ও দেশের কথা বিবেচনা করে প্রধান বিচারক যদি মুখ খুলেন তাহলে হয় তো এই অবস্থার একটা সুরাহা হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করেছেন বলে দাবি করেছেন ক্ষমতাসীন দলটির অন্যতম নীতি-নির্ধারক ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তাহলে কি সত্যিই তিনি এই কাজ করেছেন? উত্তরে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, এসব জোকস্ করেছেন। এসবের কোন উত্তর নেই। এটা ছেলে মানুষী।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত