ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ২৩ আগস্ট ২০১৯, ১৮:৫২

প্রিন্ট

ডেঙ্গু প্রতিরোধে ইসলাম

ডেঙ্গু প্রতিরোধে ইসলাম
অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীসহ সারাদেশে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। চলতি বছর মোট রোগীদরে মধ্যে প্রায় ৫৫ হাজার (৫৪,৯৫৬) জন সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন। ১ জানুয়ারি থেকে আজ ২৩ আগস্ট পর্যন্ত মোট ৬১ হাজার ৩৮ জন ভর্তি হলেও বর্তমানে সারাদেশের হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন মাত্র ৬ হাজার ৩৫ জন ডেঙ্গু রোগী। তার মধ্যে রাজধানীতে ৩ হাজার ৪১১ জন ও ঢাকা বিভাগসহ অন্যান্য বিভাগীয় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ২ হাজার ৬২৪ জন। শতকরা হিসাবে ৯০ শতাংশ রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

প্রবাদে আছে,‘রোগ প্রতিরোধ রোগ নিরাময় থেকে শ্রেয়।’ আর তাই ডেঙ্গু হওয়ার পূর্বে ইসলামি নিয়মে প্রতিরোধের মাধ্যমে নিজেকে নিম্নোক্ত পদ্ধতিতে রক্ষা করা যায়।

হযরত আবু মালেক আশআরি (রা) থেকে বর্ণিত, প্রায় দেড় হাজার বৎসর পূর্বে মহানবী (স) হাদিস শরিফে ইরশাদ করেছেন- ‘পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অংশ।’ (সহিহ মুসলিম)। বিশেষজ্ঞ দ্বারা স্বীকৃত যে, ডেঙ্গুবাহিত এডিস মশা পরিষ্কার এবং ঠাণ্ডা পানিতে জন্ম ও বংশ বিস্তার করে। তাই বাসা-বাড়িতে বা আশেপাশে পরিত্যক্ত কৌটা, ডাবের খোসা, ফুলের টব, বালতি, ফ্রিজ ও এসির নিচের জমে থাকা পানি অন্তত সাতদিন পরপর পরিষ্কার করা উচিত।

হাদিসের ভাষায়, ‘যখন কোনো জাতির মধ্যে প্রকাশ্যে নির্লজ্জতা বা অশ্লীলতা বিস্তার লাভ করে, তখন তাদের মধ্যে এমন সব সংক্রামক মহামারি ও যন্ত্রণাদায়ক রোগ দেখা দেয় যা তাদের আগের যুগে ছিল না।’ (সুনান ইবনে মাজাহ) আর এ আজাব থেকে বাঁচতে প্রয়োজন খালেসভাবে তওবা ইস্তিগফার করে মহান প্রভুর ইবাদত বন্দেগিতে মনোনিবেশ করা।

এছাড়া হাদিসে এসেছে, ‘রাসূল (স) ইরশাদ করেন, আল্লাহর নিকট ক্ষমা, স্বাস্থ্য ও সুস্থতার জন্য দোয়া করো। নিশ্চয়ই ঈমান আনার পর স্বাস্থ্যের চেয়ে আর কোনো অর্জন মানুষের নিকট উত্তম নয়।’ (সহিহ তিরমিজি ও নাসাঈ) আর হাদিসে দোয়ার নিয়ম বিশ্বনবী (স.) শিখিয়েছেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত