ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৮:৪০

প্রিন্ট

কলকাতায় দুর্গাপূজার থিম পদ্মার ইলিশ-কাঁটাতারের বেড়া

কলকাতায় দুর্গাপূজার থিম পদ্মার ইলিশ-কাঁটাতারের বেড়া
কলকাতা প্রতিনিধি

ঢাকের বাদ্যি আর শিউলির গন্ধে আগমনীর সুর। বাতাসে পুজোর গন্ধ। দুর্গা মা এসে গিয়েছেন। মহাষষ্ঠীতে, বোধনের দিনই তাই দুর্গোৎসবে মাতোয়ারা হয়ে উঠলেন কলকাতাবাসী। কচিকাঁচা থেকে বড়রা সকলেরই পূজা শুরু হয়ে গিয়েছে। শুক্রবার সকালেই কলকাতার বিভিন্ন পূজা মণ্ডপেই এসে গিয়েছে প্রতিমা। তাই ঠাকুর দেখতে বেরিয়ে পড়েছেন সকলেই।

প্রতিমা দর্শনের পাশাপাশি প্যান্ডেল হপিংয়ের আনন্দ উপভোগও করছেন বাঙালিরা। কলকাতা মহানগরীর রাস্তায় দর্শনার্থীদের ঢল। নতুন জামাকাপড় পরা থেকে খাওয়াদাওয়া, আড্ডা সবই চলছে পুরোদমে। ইতিমধ্যেই রাজ্যবাসীকে মহাষষ্ঠীর শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ষষ্ঠীর সকাল থেকে মানুষজন মণ্ডপে মণ্ডপে ভিড় জমাচ্ছেন। দিন পেরিয়ে রাত যত বেড়েছে ভিড়ও ততই বেড়েছে কলকাতার পূজা প্যান্ডেলগুলিতে।

প্রত্যেক বছরের মতোই এবারও উত্তর কলকাতার বাড়ির পুজোর বনেদিয়ানার সঙ্গে দক্ষিণ কলকাতার থিম পুজোর প্রতিযোগিতা চলছেই। কারোর পছন্দ বাড়ির পূজা, তো কারোর আবার থিম। কে এগিয়ে আর কে পিছিয়ে বলা বড়ই মুশকিল।

শুধুমাত্র কলকাতাতেই বড়, ছোট ও মাঝারি মিলিয়ে পূজার সংখ্যা প্রায় তিন হাজার। গোটা পশ্চিমবঙ্গ মিলিয়ে সংখ্যাটা ২৫ হাজারের কাছাকাছি। অতীতের চেয়ে বর্তমানে পুজোর চালচিত্রেও এসেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। সাবেকিয়ানাকে সরিয়ে সেখানে জায়গা পেয়েছে থিমের পুজো। সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানের বালাকোটে ভারতীয় বিমানবাহিনীর এয়ারস্ট্রাইক থেকে শুরু করে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি), কাঁটাতারের বেড়া কিংবা পদ্মার ইলিশের মতো থিম জায়গা করে নিয়েছে একাধিক পুজো মন্ডপে।

মধ্য কলকাতার ইয়ং বজেয় ক্লাব সার্বজনীন দুর্গাপূজা কমিটি এবার তাদের পঞ্চাশ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে থিম বালাকোট এয়ার স্ট্রাইক যেখানে ভারতীয় বিমানবাহিনীর (আইএএফ) সদস্যদের বোমা নিক্ষেপ করে পাকিস্তানে জঙ্গি ঘাঁটিগুলিকে গুড়িয়ে দিতে দেখা যাচ্ছে। মণ্ডপের মধ্যেই আইএএফ, পাক জঙ্গিদের প্রায় ৬৫ টি মডেল সজ্জিত আছে। সকলের মাঝে শোভা পাচ্ছে আইএএফ’এর উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান এর বিশাল মডেল।

এনআরসি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আতঙ্কের ছবি ফুটে উঠেছে দক্ষিন কলকাতার কসবার রাজডাঙ্গা নব উদয় সক্সেঘর পূজা মণ্ডপে। ব্যাডমিন্টনের র‌্যাকেট, কক ইত্যাদির মডেল দিয়ে উদ্বাস্তুদের জীবনকাহিনী ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। র‌্যাকেট দিয়ে কক’কে যেভাবে এক কোর্ট থেকে আরেক কোর্টে ছুঁড়ে ফেলা হয়, তেমনি শরণার্থীদেরকে নিয়েও বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে সীমান্তবর্তী দুইটি দেশের মধ্যে ঠেলে দেওয়ার একটা প্রচেষ্টা চলে।

কেষ্টপুর প্রফুল্লকানন (পশ্চিম) অধিবাসীবৃন্দ ক্লাবের এবারের থিম ‘একই মাটির সন্তান’। ভারত ভাগের পর বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে থেকে যাওয়া আত্মীয় পড়শীরা কেমন আছে? কেমন আছে খয়েরন্নিসা, ইদুল আরা? মূলত তাদের কথা মাথায় রেখেই এবারের থিম।

আলোচনার টেবিল ছেড়ে ইলিশ কূটনীতি স্থান পেয়েছে পূজা মণ্ডপেও। ৬০ বছরের পুরোনো উত্তর শরহতলির বেলঘড়িয়ার বাণী মন্দির ক্লাবে তাই এবার পদ্মার ইলিশের ছড়াছড়ি। অ্যালুমিনিয়াম শিট, নৌকা, জাল, ফাইবার দিয়ে গড়ে উঠেছে বর্ণময় প্যান্ডেল। দর্শকরা মণ্ডপে ঢুকলেই দেখতে পাবেন পাল তোলা নৌকা থেকে মৎসজীবীদের মাছ ধরার জীবনযাত্রার ছবি। মাটি দিয়ে তৈরি মাছ বিক্রেতা মডেলরা দাঁড়ি পাল্লা দিয়ে ইলিশ বিক্রি করছেন। ইলিশ মাছকে এক ফালি চাঁদের সাথে তুলনা করে থিমের নামও রাখা হয়েছে ‘এক ফালি চাঁদ’।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত