ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : ৪ মিনিট আগে English
ব্রেকিং নিউজ
  •   ৬৯টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল করোনা রোগীসহ সব ধরনের সেবা দিতে ২৪ ঘণ্টা প্রস্তুত

প্রকাশ : ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫:৫৮

প্রিন্ট

শিক্ষকদের মর্যাদায় প্রয়োজন ‌‌‘শিক্ষক সুরক্ষা আইন’

শিক্ষকদের মর্যাদায় প্রয়োজন ‌‌‘শিক্ষক সুরক্ষা আইন’

Evaly

অনলাইন ডেস্ক

শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। আর শিক্ষক জাতি গড়ার সুমহান কারিগর। তাদের প্রাপ্য সর্বোচ্চ সম্মান ও মর্যাদা নিশ্চিত করা না গেলে জাতির প্রত্যাশিত উন্নতি ও সমৃদ্ধি ব্যাহত হবে।

সম্প্রতি দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উপর দুর্বৃত্তদের হামলা আশংকাজনক হারে বেড়ে গেছে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি কিংবা সদস্যদের হাতে নিগৃহীত হতে হচ্ছে শিক্ষকদের। নারী শিক্ষকরাও এমন হামলা থেকে রেহাই পাচ্ছেন না। শিক্ষকদের শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতনে পিছিয়ে নেই খোদ অভিভাবকরাও!

সরকারি বরাদ্দে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের সিদ্ধান্ত ও ব্যয়িত অর্থের হিসাবনিকাশ নিয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যদের সাথে শিক্ষকদের মতবিরোধের জের ধরে শিক্ষকদের উপর চড়াও হন সংশ্লিষ্ট প্রভাবশালীরা।

এছাড়া, সন্তানের পড়ালেখার উন্নয়নে গৃহীত সিদ্ধান্ত কিংবা যৌক্তিক শাসনের বিপক্ষে কড়া অবস্থান নিয়ে অভিভাবকদের কেউ কেউ বিদ্যালয়ে এসে সবার উপস্থিতিতেই লাঞ্ছিত করছেন সম্মানিত শিক্ষকদের। ইদানীং সেটা শারীরিক আঘাতেও রূপ নিয়েছে। শিক্ষকগণ নিজেদের অর্জিত সম্মান ও স্বকীয়তা অক্ষুণ্ণ রাখতে এসব পরিস্থিতিতে নীরব থেকে হজম করছেন সকল অপমান ও অত্যাচার।

পারিবারিক কিংবা সামাজিক বিরোধের জেরেও রক্তাক্ত হতে হচ্ছে শিক্ষকদের। সন্ত্রাসীরা শিক্ষকদের মাথা, হাত ও পা ভেঙে মাতছে বুনো উল্লাসে! প্রচলিত আইনের ফাঁকফোকরের সুযোগ আর সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে পার পাচ্ছে অপরাধীরা।

শিক্ষকদের উপর এভাবে একের পর এক হামলা আর অপমানের ঘটনা সভ্য, স্বাধীন দেশের জন্য নিশ্চিতভাবে লজ্জাজনক। শিক্ষাগুরুর মর্যাদা নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। গল্প, কবিতা, নাটকে এসব বহুবার বহুভাবে বিবৃত হয়েছে। অথচ বাস্তবতা বিপরীত। প্রাথমিক ছাড়াও মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উপর বিভিন্ন জনের ন্যক্কারজনক হামলার কথা পত্রিকা আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে প্রায় সবারই জানা।

দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গড়ার বীর কারিগরদের সাথে এমন ঘৃণ্য ব্যাপারগুলো রোধ করা না গেলে জাতির সার্বিক সমৃদ্ধি হোঁচট খেতে বাধ্য। ভবিষ্যতে এধরণের অপ্রত্যাশিত ও ঘটনা বন্ধ করতে প্রয়োজন "শিক্ষক সুরক্ষা আইন" প্রণয়ন। এরইসাথে ইতোমধ্যে ঘটা সকল ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক দোষীদের আইনের আওতায় আনা আবশ্যক।

সম্মানিত শিক্ষকদের প্রতি এমন অন্যায় আক্রমণ ও লাঞ্ছনাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করে শিক্ষক মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখার ব্যাপারে সরকারের কঠোর অবস্থান কাম্য।

আবু ফারুক

সহকারী শিক্ষক

ভাগ্যকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

সদর, বান্দরবন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত