ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭ আপডেট : ১০ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:৩৩

প্রিন্ট

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করবে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করবে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ
ছবি: প্রতিনিধি

ঢাবি প্রতিনিধি

আগামী ১৭ মার্চ জাতির জনকের জন্মদিনের মধ্যেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বঙ্গবন্ধুর নান্দনিক ভাস্কর্য নির্মাণ করতে হবে। অন্যথায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে ১৭ মার্চ পুনরায় ভাস্কর্য নির্মাণ করবে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামানে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাবে নাকি বন্ধ করবে এ বিষয়ে রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করে একথা বলেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

ভাস্কর্য নির্মাণের কাজ বন্ধ করে ১৭ মার্চ পর্যন্ত অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেয় সংগঠনটি।

গতকাল বিকেলে ‘মুক্তিযুদ্ধের সূতিকাগার’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপন করা শুরু করেছিলো মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। কিন্তু কর্তৃপক্ষের অনুমতি না মেলায় ভাস্কর্যটি স্থাপনের কাজ স্থগিত রাখে তারা। পরে বিষয়টি নিয়ে উপাচার্যের সাথে বৈঠকে বসে সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বৈঠকে উপাচার্য তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নিজেরাই ভাস্কর্য নির্মাণ করবে বলে আশ্বাস দেন।

তবে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, তারা ভাস্কর্য নির্মাণে আর কালক্ষেপণ সহ্য করবেন না। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তা না করতে পারলে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ পুনরায় ভাস্কর্য নির্মাণ করবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছেন, অপরিকল্পিতভাবে যেখানে সেখানে ভাস্কর্য নির্মাণ করা যেতে পারে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি পরিকল্পনা আছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ.কে.এম গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ এক‌টি বিশাল বিষয়। এই বিষ‌য়ে সক‌লের সহ‌যো‌গিতা ও সুন্দর আচরণ ক‌রা উচিত। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য কোথায়, কীভা‌বে স্থাপন কর‌বে সেটা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নি‌বে।’

গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনের রাস্তা খুঁড়ে দুপুরে ভাস্কর্য স্থাপনের কাজ শুরু করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। পরে সেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. গোলাম রাব্বানী উপস্থিত হয়ে অপরিকল্পিত ভাবে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন না করার অনুরোধ করেন। দীর্ঘ বাকবিতণ্ডার পর প্রক্টরের অনুরোধে উপাচার্যের সাথে আলোচনায় বসেন তারা।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত