ঢাকা, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮ আপডেট : ৩ মিনিট আগে

প্রকাশ : ২৭ মার্চ ২০২১, ১৬:৪৫

প্রিন্ট

ইন্টারেস্টিং কিছু হলে অভিনয়ে আপত্তি নেই: জেফার

ইন্টারেস্টিং কিছু হলে অভিনয়ে আপত্তি নেই: জেফার
জেফার রহমান

ইমরুল নূর

‘আমি কখনোই বিশেষ দিবসকে ঘিরে গান প্রকাশ করা নিয়ে ভাবি না। আমি শুধু গানটা নিয়ে ভাবি। প্রজেক্ট রেডি হলে তখনই প্রকাশনা নিয়ে চিন্তা করি। সেটা যেকোনো সময়েই হতে পারে। তবে খুব শিগগিরই নতুন গান আসবে আমার।’- কথাগুলো বলছিলেন ইংরেজি গান গেয়ে সাড়া ফেলে দেওয়া সংগীতশিল্পী জেফার রহমান। যিনি এর বাইরেও একজন গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। তার আরও একটি পরিচয় হচ্ছে, তিনি বাংলাদেশের প্রথম ইউটিউব বেইজড মিউজিশিয়ান।

২০১৯ সালে সর্বশেষ গান বের হয়েছিলো তার। ‘ন ডরাই’ সিনেমায় ব্যবহৃত ‘হারবো না’ গানের পর আর নতুন গানে পাওয়া যায়নি তাকে। সিনেমাটির এক্সিকিউটিভ প্রোডিউসারও ছিলেন তিনি। জেফার রহমান বলেন, ‘হারবো না’ গানটি থেকে অনেক সাড়া পেয়েছি। এরপর নতুন করে কোনো গান প্রকাশ করিনি। তবে বেশ কিছু গান প্রস্তুত করে রেখেছি যেগুলো সামনে রিলিজ দেবো।

তিনি আরও বলেন, ‘গত বছর থেকেই করোনার কারণে আমরা সবাই ঘরবন্দি ছিলাম দীর্ঘ একটা সময়। আর সেসময়টাতে আমি নিজেকে নিয়ে নতুন করে উপলব্ধি করেছি। সত্যি বলতে আমি অনেক পারফেকশনিস্ট, অনেক সময় নিয়ে গান করি। আমার কাছে একদম নিখুঁত মনে না হওয়া পর্যন্ত আমি কাজটা করে যাই। যার কারণে আমার গান আসতে অনেক সময় লাগে। আমি চাই ভালো একটা আউটপুট দেওয়ার জন্য। মূলত এটার জন্যই সময়টা বেশি লাগে। আর খুব দ্রুত গান বের করার পক্ষেও নই আমি। আমার ক্যারিয়ার অনুযায়ী গানের সংখ্যাটা কম, তবে এখন সেই সংখাটাকে বাড়াবো। করোনার সময়টাতে অনেকগুলো গানের কাজ শেষ করেছি। এবার উপলব্ধি করতে পেরেছি যে, গানের ভলিউম বাড়ানো দরকার এবং সেটাই করবো।’

বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত চলচ্চিত্র ‘সেনাপতি’তে ইংরেজি গান গেয়েছিলেন জেফার। এই সিনেমার মধ্য দিয়েই প্রথম প্লে-ব্যাক করেন তিনি। এরপর ‘পাঠশালা’ সিনেমায় ‘তুই ভালো থাকিস’ ও ‘যাযাবর’ সিনেমায় ‘প্রিয়তমা’ শিরোনামে গান করেছেন। এর বাইরেও একটি ওয়েব সিরিজে ‘মাকড়শা’ শিরোনামে একটি গানও গেয়েছেন, যেটি বেশ সাড়া ফেলেছে।

চলতি বছরে বেশ কিছু কমার্শিয়াল গানেও পাওয়া যাবে বলে জানান জেফার। তিনি বলেন, ‘এই বছর বেশ কিছু কমার্শিয়াল গান আসবে আমার। প্লে-ব্যাক করাটা সত্যি বেশ আনন্দের। একটা সময় এত বেশি আগ্রহী ছিলাম না। কিন্তু এখন বেশ আগ্রহী। সিনেমার গানের জন্য আমি এখন একদম ওপেন। যেহেতু আমার গানের প্যাটার্নটাও একটু অন্যরকম তাই এসব প্রস্তাব আমার কাছে আসে কম। তবে আমি নিজেকে নতুনভাবে উপস্থাপন করতে চাই। যখন কোনো সিনেমার গানের প্রস্তাব আসবে তখন যদি দেখি নিজেকে খাপ খাওয়াতে পারবো বা নতুন কিছু দেখাতে পারবো তাহলে সেটা অবশ্যই করবো। আমি করতে চাই।’

গায়িকা জেফারকে কি কখনো নায়িকা হিসেবে দেখা যাবে? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমি যখন গান নিয়ে আমার ক্যারিয়ার ভাবতে শুরু করি তখন অভিনয়ের জন্য অনেক প্রস্তাব পেয়েছিলাম। কিন্তু ওই সময় ইচ্ছেটা ছিলো না। এখন যেহেতু কিছু একটা করছি, করতে পারছি; সেহেতু এখন অন্য একটা সেক্টর ট্রাই করে দেখা যেতে পারে। ইচ্ছে আছে অভিনয় করার। তবে সেটি হতে পারে ওয়েব সিরিজ, ওয়েব ফিল্ম বা সিনেমা। যদি ইন্টারেস্টিং কিছু হয় তবে নিজেকে সেখানে দেখাতে পারলে মন্দ হবে না আশা করি। আমার আপত্তি নেই।’

সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক ফ্যাশন ব্র্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত হলেন এই গায়িকা। ‘লাভজেন’ ফ্যাশন ব্র্যান্ডের বাংলাদেশ অংশের শুভেচ্ছাদূত হলেন জেফার। এরইমধ্যে প্রতিষ্ঠানটির বাংলাদেশ অংশের পরিচালকের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেন জেফার। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘এরকম একটি আন্তর্জাতিক ফ্যাশন ব্র্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে বেশ ভালো লাগছে। আমি তাদের ব্রায়ন্ড সম্পর্কে জেনেছি এবং পোশাকগুলো দেখেছিও। সত্যি দারুণ। আমাদের দেশে তাদের নতুন যাত্রায় আমি রয়েছি সঙ্গে। তাদের বিভিন্ন প্রমোশনাল কাজে আমি থাকবো। আমার নতুন বেশ কিছু গানও থাকছে ব্র্যান্ডটির সঙ্গে।’

তরুণ প্রজন্মের কাছে বেশ পরিচিত মুখ জেফার রহমান, যিনি একাধারে সংগীতশিল্পী ও ইউটিউবার। ইংরেজি গান গেয়েই মূলত আলোচনায় আসেন তিনি। বিশ্বব্যাপী ইউটিউবে একটু একটু করে চলা শুরু করলেও বাংলাদেশে তখনও এই মাধ্যম খুব একটা পরিচিত হয়ে উঠেনি। সেসময়েই ইউটিউবে গান প্রকাশ করতেন এই গায়িকা। ২০১০ সাল থেকে বিখ্যাত সব ইংরেজি গান কাভার করে শোরগোল ফেলে দেওয়া জেফার ধীরে ধীরে পৌঁছে যান জনপ্রিয়তার শিখরে। নিজস্ব স্বকীয়তা, ভিন্ন গায়কী আর ফ্যাশন স্টেটমেন্ট দিয়ে সহজেই সবার থেকে নিজেকে আলাদা হিসেবে তৈরি করতে পেরেছেন।

২০১৭ সালে স্টার সিনেপ্লেক্সের সহযোগিতায় প্রকাশিত হয় জেফারের প্রথম একক অ্যালবাম ‘আনকেইজড’। এতে তার ৯টি মৌলিক ইংরেজি গান রয়েছে। রক ও পপ ঘরানার ইংরেজি গান গাওয়ার জন্য জেফার পরিচিত হলেও, একাধিক চলচ্চিত্রে বাংলা গানও গেয়েছেন তিনি।

মিউজিক ছাড়াও জেফারের সবচেয়ে আকর্ষণীয় পার্ট হচ্ছে তার চুল। এককালে এই চুলের স্টাইল নিয়ে প্রচুর হাসাহাসি শুনলেও এখন সেটাই তার আবেদনময়ী ফ্যাশন।

বাংলাদেশ জার্নাল/আইএন

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত